1. syedmonir1985@gmail.com : DAINIKPOTRIKA :
  2. dainikpotrikainfo@gmail.com : Central Newsroom : Central Newsroom
  3. dainikpotrikabd@gmail.com : Central newsroom : Central newsroom
  4. dainikpotrikaads@gmail.com : News Room USA : News Room USA
ফিলিস্তিনিদের রক্ষা করুন, স্রষ্টার নিকট বিশ্ব মুসলিম উম্মার আবেদনঃ - দৈনিক পত্রিকা
বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ০৮:২৮ অপরাহ্ন
বিজ্ঞপ্তিঃ
ছন্দের তালে নৃত্যে আনন্দে ভারত-বাংলাদেশের অংশগ্রহনে নৃত্য ছড়াওকবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগীতা-২০২১

ফিলিস্তিনিদের রক্ষা করুন, স্রষ্টার নিকট বিশ্ব মুসলিম উম্মার আবেদনঃ

মোঃ সাখাওয়াৎ হোসেন সরকার(মিলন) স্টাফ রিপোর্টার
  • প্রকাশ কালঃ বৃহস্পতিবার, ২০ মে, ২০২১
  • ৮৮ বার দেখা হয়েছে
বিশ্বের ১৯৩ টি রাষ্ট্রের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঘৃণিত রাষ্ট্র হলো ইসরাইল। এটি জবরদখলকারী একটি রাষ্ট্র। রাষ্ট্র হিসেবে এটি অবৈধ আর এর মতাদর্শ হলো বর্ণবাদী ইহুদিবাদ। ধূর্ততা, প্রতারণা আর নৃশংসতার মধ্য দিয়েই রাষ্ট্রটির সৃষ্টি। পৃথিবীর অনেক দেশের সাথেই ইসরাইলের দূতাবাস বা কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ভাসমান ইহুদিরা পৃথিবীর কোনো দেশে আশ্রয় না পেয়ে নিজেদের ধর্মীয় বিশ্বাসের দোহাই দিয়ে ফিলিস্তিনে আশ্রয় চায়। আশ্রয় পেয়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ইহুদীরা ব্যবসার আড়ালে সেখানে জড়ো হতে থাকে। অতঃপর দিনে দিনে ফিলিস্তিনীদের জায়গা জমি দখল করে তাদেরকেই ভিটা মাটি থেকে উচ্ছেদ করা শুরু করে।
অবশেষে ১৯৪৭ সালের নভেম্বর মাসে ফিলিস্তিনের ভূখণ্ডে দুটি রাষ্ট্র গঠনের সিদ্ধান্ত নেয় জাতিসংঘ। একটি ইহুদিদের এবং অন্যটি আরবদের জন্য। ইহুদিরা মোট ভূখণ্ডের ১০ শতাংশের মালিক হলেও তাদের দেয়া হয় মোট জমির ৫৫ ভাগ, অবশিষ্ট ফিলিস্তিনীদের ৪৫ ভাগ।
কিন্তু আরবদের জনসংখ্যা এবং জমির মালিকানা ছিল ইহুদীদের দ্বিগুণ। স্বভাবতই আরবরা এ সিদ্ধান্ত মেনে নেয়নি। তারা জাতিসংঘের এ সিদ্ধান্ত খারিজ করে দেয়। কিন্তু ফিলিস্তিনীদের ভূখণ্ডে তখন ইহুদীরা বিজয় উল্লাস শুরু করে। এভাবেই অবৈধ ইসরাইল রাষ্ট্রের পত্তন হয়।
ইসরাইল রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠার সময় প্রায় সাত লাখ ফিলিস্তিনী বাস্তুচ্যুত হয়ে পাশ্ববর্তী আরব দেশগুলোতে আশ্রয় নেয়। তারা ভেবেছিল দ্রুত সমস্যার সমাধান হলে তারা বাড়ি ফিরে আসতে পারবে। কিন্তু ইসরাইল তাদের আর কখনোই বাড়ি ফিরতে দেয়নি।
বিগত ৭০ বছর ধরে ফিলিস্তিনীদের প্রতি বর্বর আচরণ, দমন-পীড়ন ও মানবাধিকার লঙ্ঘন করেই চলেছে কুখ্যাত ইসরাইল।
জার্মানির শাসক হিটলার প্রায় ৬০ লক্ষ ইহুদীকে হত্যা করে কিছু ইহুদীদের জীবিত ছেড়ে দিয়ে বলেছিলেন আমি চাইলে পৃথিবীর সব ইহুদীদের হত্যা করতে পারতাম, কিন্তু কিছু ইহুদীদের বাচিয়ে রেখেছি যাতে পৃথিবীর মানুষ জানতে পারে যে, আমি কেন ইহুদী হত্যায় মেতে উঠে ছিলাম।
তিনিই একমাত্র ব্যক্তি ছিলেন, যিনি ইহুদীদের শরীরের রক্ত এবং রগ সম্পর্কে ভালভাবেই জানতেন
এবং জানতেন যে, ইহুদি বেঁচে থাকলে পরবর্তীতে কি হতে পারে। বর্তমান বিশ্বে ইহুদিদের শায়েস্তা করার জন্য একজন হিটলার বড়ো প্রয়োজন।
মুসলমানদের আর্তনাদে ফিলিস্তিনের আকাশ-বাতাস আজ ভারী হয়ে উঠছে। ফিলিস্তিনে আর কত রক্ত ঝড়লে বিশ্ব মুসলিম শাসকদের ঘুম ভাঙবে? ওআইসি আর জাতিসংঘের মোড়লদের টনক নড়বে?
হে রহমান ! হে কাবার মালিক! আপনার গায়েবী মদদ দিয়ে নির্যাতিত ফিলিস্তিনীদের সাহায্য করুন! মসজিদুল আকসাকে আপনার কুদরতি হাতে হেফাজত করুন, মজলুমদেরকে জালিমের হাত থেকে রক্ষা করুন।

গুরুত্বপূর্ণ সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ
© সর্বস্বত্ত্ব ২০১৯-২০২১
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbazardainikp1
ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি । দৈনিক পত্রিকা কতৃপক্ষ
%d bloggers like this: